ছোটদের ছোট ছোট গল্প

- সফুরউদ্দিন প্রভাত

---

লেখাপড়ার পাশাপাশি শিশুরা গল্প, কবিতা, ছড়া ইত্যাদি থেকে নানা ধরনের শিক্ষা পেয়ে থাকে। এতে শিশুদের মেধা বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে। এখানে ছোটদের জন্য কিছু উপদেশমূলক গল্প প্রকাশ করা হলো, যা শিশুদের উপদেশের পাশাপাশি আনন্দ যোগাবে ।

মেঠো ইদুর ও শহুরে ইদুর
একদিন এক গণ্যমান্য শহুরে ইদুর গেল এক গ্রামের মেঠো ইদুরের কাছে। মেঠো ইদুর বাস করত মাঠের এক গর্তে। সে তার শহুরে অতিথিকে মটর ও গমের দানা খেতে দিল।

গণ্যমান্য ইদুর একটু খুঁটে খেয়ে বলল, “তোমার খাবার খুবই অপুষ্টিকর তাই তুমি এমন রোগা। তুমি একদিন এসো আমার কাছে, দেখো আমরা কীভাবে থাকি।”

তখন মেঠো ইদুর গেল শহুরে ইদুরের কাছে। সে থাকত এক বাসার মেঝের নিচে গর্তে। রাতের জন্য তারা দুজন মেঝের নিচে অপেক্ষা করল। রাতে লোকেরা এসে খেয়ে চলে গেল। তখন শহুরে ইদুর তার অতিথিকে এক গর্ত দিয়ে খাবার ঘরে নিয়ে গেল। তারা দুজনেই চড়ে বসল টেবিলের উপর। সাধারণ মেঠো ইদুর জীবনে কখনও এমন ভালো খাবার চোখেও দেখেনি।

সে বলল, “তুমি ঠিক বলেছ, আমাদের জীবন খুবই খারাপ। আমিও শহরে বাস করতে চলে আসব।”

একথা বলতে না বলতেই টেবিল কেঁপে উঠল। আর দরজা দিয়ে মোমবাতি হাতে নিয়ে তাদের ধরতে লোক ঘরে ঢুকল। তখন তারা কোনো রকম গর্তে ঢুকে নিজেদের প্রাণ বাঁচাল।

মেঠো ইদুর বলল, “না!, এর চেয়ে আমার মাঠে বাস করা অনেক ভালো। সেখানে এমন মিষ্টি খাবার নেই ঠিকই, তবে এমন ভয়ের কোনো কারণও নেই।”

গল্পের শিক্ষা: যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে সুখে থাকা ভালো।

বাঘ ও গাধা
একদিন এক গাধার সাথে বাঘের দেখা হল। গাধা বাঘকে বলল — ঘাসের রং নীল। বাঘ বলল — না, ঘাসের রং সবুজ।

কিছুক্ষনের মধ্যেই দু’জনের মধ্যে তুমুল তর্কে লেগে গেল। কেউ কারো কথা শুনছে না। অবশেষ তারা জঙ্গলের রাজা সিংহের কাছে বিচারের জন্য উপস্থিত হল।

রাজদরবারে সিংহের কাছে পৌঁছানোর আগেই গাধা ডাক ছাড়তে শুরু করে দিল — মহারাজ, মহারাজ আপনিই বলুন ঘাসের রং নীল কি না? সিংহ বলল — হ্যাঁ, ঘাসের রং নীল।

গাধা তাড়াতাড়ি সিংহের আরো কাছে গিয়ে বলতে লাগল —বাঘ আমার কথা মানছে না, শুধু তর্ক করছে এবং আমাকে বিরক্ত করছে। ওকে শাস্তি দিন মহারাজ।

সিংহ তখন ঘোষণা করল – বাঘকে ৫ বছর কোনো কথা বলতে পারবে না এটাই তার শাস্তি।

গাধা খুশিতে লাফাতে লাগল এবং বলতে বলতে চলে গেল — ঘাসের রং নীল, ঘাসের রং নীল।

বাঘ বাধ্য শাস্তি মেনে নিল, কিন্তু সিংহকে জিজ্ঞাসা করল — মহারাজ, ঘাসের রং তো সত্যিই সবুজ তবে আপনি আমায় শাস্তি দিলেন কেন?

সিংহ বলল — ঠিক, ঘাসের রং সবুজ।

বাঘ জিজ্ঞাসা করল — তাহলে আপনি আমায় শাস্তি দিলেন কেন?

সিংহ বলল — তবে শোন, তোমাকে শাস্তি দেওয়ার সাথে ঘাসের রং সবুজ না নীল, সেই প্রশ্নের কোনো সম্পর্ক নেই। তোমাকে শাস্তি দিয়েছি কারণ হলো — তোমার মত একজন সাহসী, বুদ্ধিমান প্রাণী একটা গাধার সাথে তর্ক করে সময় নষ্ট করেছো এবং এরকম একটা সামান্য কারণে আমার কাছে এসে আমার সময় নষ্ট করেছ।

গল্পের শিক্ষা: মুর্খের সাথে কখনো তর্কে যেওনা।

গাধা শিয়াল ও সিংহ
এক গাধা আর এক শিয়াল দুই বন্ধু। তারা একই বনে থাকে। কেউ কাউকে ছাড়া থাকতে পারে না। গাধা বনের তাজা সবুজ শাক- সবজি খায়। আর শিয়াল পার্শ্ববর্তী গ্রাম থেকে হাসি, মুরগি ইত্যাদি খায়।

একদিন তারা দুজনে বনে ধারে গল্প করছিল। হঠাৎএকটি সিংহ আসল। গাধা খুব ভয় পেল, কিন্তু শিয়াল তাকে শান্ত করল।

শিয়াল সাহস করে সিংহের দিকে এগিয়ে গেল এবং সে সিংহের প্রশংসা করতে লাগল। ”মহারাজ, আপনি আমাদের রাজা।” কিন্তু সিংহ খুশি হল না। গাধা কাছে না আসায় সিংহ খুব রেগে গল। কারণ সিংহের গাধাকে আহার করার লোভ হল।

শিয়াল বলল, ”মহারাজ আপনি যদি আমার কোনো ক্ষতি না করেন তবে আমি গাধাকে আহার করার ব্যবস্থা করতে পারি। আমি গাধাকে একটি গর্তে নিয়ে যাব। গাধা সেখান থেকে আর বের হতে পারবে না এবং আপনি মনের আনন্দে আহার করতে পারবেন।”

সিংহ রাজি হল এবং শিয়াল গাধার কাছে ফিরে গেল।

শিয়াল বলল ”এসো, সিংহ চলে না যাওয়া পর্যন্ত আমরা একটা গর্তে গিয়ে লুকাই। আমি একটা ভালো জায়গা চিনি।”

শিয়াল গাধাটিকে বনের মধ্যে একটি গর্তে নিয়ে গেল। এদিকে সিংহ প্রথমেই বিশ্বাসঘাতক শিয়ালকে বধ করে খেতে শুরু করল। এই সুযোগে গাধা ছুটে পালাল।

এক বিশ্বাসঘাতক আর এক বিশ্বাসঘাতককে হত্যা করল।

গল্পের শিক্ষা: কারো সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করা উচিত নয়।

প্রকাশকাল: মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪০ এএম   ▪   হালনাগাদ: মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪০ এএম   ▪   পঠিত: ৩০০

পাঠকের মতামত



আর্কাইভ